• ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মোশাররফ করিমের ভক্ত অনন্ত জলিল ও বর্ষা!

ডেস্ক
প্রকাশিত জানুয়ারি ১৯, ২০২৪, ১২:৫৫ অপরাহ্ণ
মোশাররফ করিমের ভক্ত অনন্ত জলিল ও বর্ষা!
সংবাদটি শেয়ার করুন....

ভারতের সঙ্গে একইদিনে শুক্রবার (১৯ জানুয়ারি) দেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে মোশাররফ করিম অভিনীত ব্রাত্য বসুর সিনেমা ‘হুব্বা’। এর আগে বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি প্রেক্ষাগৃহে সিনেমাটির প্রিমিয়ার শোয়ের আয়োজন করা হয়।

যেখানে ভারতীয় নির্মাতা ব্রাত্য বসু, অভিনেতা মোশাররফ করিমসহ সিনেমা সংশ্লিষ্টদের অনেকে উপস্থিত ছিলেন। হুব্বার প্রিমিয়ার শো’তে দেশের গণমাধ্যমকর্মী থেকে শোবিজ অঙ্গনের বহু পরিচিত মুখদেরও দেখা গেছে।

‘হুব্বা’ দেখতে উপস্থিত হন তারকা দম্পতি অনন্ত জলিল ও আফিয়া নুসরাত বর্ষা। এ সময় তারা সংবাদকর্মীদের মুখোমুখি হয়ে ‘হুব্বা’র জন্য শুভ কামনা জানান। সেই সঙ্গে নিজেদের অভিনেতা মোশাররফ করিমের অভিনয়ের যে ভক্ত বলে দাবি করেন।

অভিনেত্রী আফিয়া নুসরাত বর্ষা বলেন, মোশাররফ করিম তুমুল জনপ্রিয় একজন অভিনেতা। দেশে বিদেশে তার অসংখ্য ভক্ত অনুরাগী আছেন। আমরাও তার ভীষণ ভক্ত। দু’দিন আগেই আমি আর অনন্ত জলিল তার একটি নাটক দেখতে দেখতে কথা বলছিলাম। আর এসব কারণে চাই, হুব্বা সিনেমাটি যে সুপারডুপার হিট হয়।

অনন্ত জলিল বলেন, আমরা সব সময়ই বাংলা সিনেমার পক্ষে। বাংলা সিনেমা ভালো চলুক, দর্শকপ্রিয়তা পাক। বাংলাদেশের সিনেমা ভালো চললেই চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা যারা আছেন, সবাই কাজ করতে পারবেন; এবং চলচ্চিত্র বেঁচে থাকবে। তাই আমরা চাই ‘হুব্বা’ও যেন দেশ-বিদেশে খুব ভালো চলে।

জলিল এসময় আরও বলেন, ‘হুব্বা’ সিনেমাতে যিনি প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন, সেই মোশাররফ ভাই আমাদের খুব প্রিয় একজন মানুষ। উনার অভিনয়ের ব্যাপারে কিছু না বলাই ঠিক হবে আমার। কারণ উনি এতোই ভালো অভিনেতা, এটা না বললেও হবে। উনাকে বাংলাদেশের বিখ্যাত অভিনেতা বলা যেতে পারে। তার সিনেমা সবাই মিলে দেখবে, এটাই আশা রাখি।

প্রসঙ্গত, পশ্চিমবঙ্গের হুগলি জেলার অপরাধজগতের একচ্ছত্র ক্ষমতার অধিকারী হুব্বা শ্যামলকে নিয়ে হুব্বা বানিয়েছেন ব্রাত্য বসু। নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন বাংলাদেশের মোশাররফ করিম। সিনেমাটি দেশে আমদানি করেছে জাজ মাল্টিমিডিয়া।

‘হুব্বা’তে মোশাররফ করিম ছাড়াও আরও অভিনয় করেছেন- ইন্দ্রনীল সেনগুপ্ত, শ্রাবণী দাস, সৌমিক হালদার প্রমুখ। সিনেমাটি প্রযোজনার দায়িত্বে রয়েছে ফিরদৌসল হাসানের প্রযোজনা সংস্থা ‘ফ্রেন্ডস্‌ কমিউনিকেশন’।